মাশরাফিই ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের সেরা অধিনায়ক: শোয়েব আখতার

বিশ্বকাপ শুরু হতে আর মাত্র কিছু দিন বাকি। ক্রিকেটের এই মহাআসরে অংশ নিবে ১০ দল। ইতিমধ্যে প্রতিটি দল চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা করে ফেলেছে। সেই সাথে ১০ অধিনায়কও পেয়ে গেছে ক্রিকেটবিশ্ব। এদের মধ্যে বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে সেরা অধিনায়ক বললেন পাকিস্থানের সাবেক পেস বোলার শোয়েব আখতার।

আসন্ন ক্রিকেট বিশ্বকাপে সবচেয়ে অভিজ্ঞ দল বাংলাদেশ। সেই দলটিকেই নেতৃত্ব দেবেন মাশরাফি। ২০১৫ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর ক্রিকেট বিশ্বে টাইগারদের উচ্চাসনে নিয়ে গেছেন তিনি। টাইগারদের অধিনায়ক ছাড়া এবারের বিশ্বকাপে আর কোনো অধিনায়কই টানা ২য় বার দলকে নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছেন না।

মাশরাফির হাত ধরেই ২০১৫ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল, ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনাল এবং গত বছর এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলে বাংলাদেশ। সার্বিক বিচারে অন্য বাকি অধিনায়কদের চেয়ে মাশরাফিকে একধাপ এগিয়ে রাখছেন শোয়েব।

সম্প্রতি পিটিভি স্পোর্টসকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমার মতে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের সেরা অধিনায়ক মাশরাফি। তবে টাইগারদের বেশি উচ্চাভিলাষী হওয়া যাবে না। নিজেদের সেরা খেলাটা খেলতে হবে। তা হলেই বিশ্বমঞ্চে ভালো করবে তারা।

আগামী ৩০ মে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসে গড়াবে এবারের ক্রিকেটের বৈশ্বিক আসর। আর ২ জুন ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে দ্বাদশতম টুর্নামেন্টের অভিযানে মাঠে নামবে ম্যাশবাহিনী।

মাশরাফির প্রশংসায় পঞ্চমুখ সাবেক পাকি ক্রিকেটার রশিদ লতিফ

পাকিস্থানের সাবেক অধিনায়ক রশিদ লতিফ মনে করেন, ইনজুরির সঙ্গে লড়াই করার পাশাপাশি দলকে এক সাথে সামনে নিয়ে চলছেন টাইগারদের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক।

লতিফ বলেন, পায়ে বড় ধরনের ইনজুরি থাকা সত্ত্বেও সে দলকে এগিয়ে নিয়ে চলছে। ইনজুরি নিয়ে এভাবে এগিয়ে চলা বেশ কঠিন। ও পুরো দলকে ঐক্যবদ্ধ করে রেখেছে। দেশটিতে তার অনেক সুনাম রয়েছে।

পাকিস্থানের সাবেক উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান বলেন, ২০১৪, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে দারুণ ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে ঘরের মাঠে ভারত, পাকিস্থান, দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছে লাল সবুজের দলটি। ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে বিদায় করে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলে টাইগাররা। টাইগার ব্যাটসম্যানরা অসাধারণ স্ট্রাইক রোটেট করে খেলতে পারে। এটি তাদের জন্য প্লাস পয়েন্ট।

২০১৫ সালের বিশ্বকাপে সাফল্য পাবার পর বদলে যায় বাংলাদেশ। ধারাবাহিক সাফল্য পেতে থাকে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। ২০১৯ বিশ্বকাপে তাদের নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখছেন দেশের কোটি ক্রিকেটপ্রেমী। সেই লক্ষ্যেই জুন মাসের ২ তারিখ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *