জাকার্তা থেকে রাজধানী সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইন্দোনেশিয়া।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সাধারণ জ্ঞানের প্রশ্নের উত্তরে এতোদিন ইন্দোনেশিয়ার রাজধানীর নাম হিসেবে সবাই জাকার্তার কথা বলেছে। তবে এবার সময় হয়েছে দেশটির রাজধানী হিসেবে নতুন আরেকটি শহরের নাম মুখস্ত করার। কারণ, জাকার্তা থেকে রাজধানী সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইন্দোনেশিয়া।

দেশটির পরিকল্পনামন্ত্রী ব্যামব্যাঙ ব্রডজনগোরোর বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা বিবিসি এই তথ্য জানিয়েছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হিসেবে ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতি জোকো উইদোদো রাজধানী পরিবর্তনের কথা জানিয়েছেন। তবে নতুন কোন শহরে রাজধানী সরিয়ে নেওয়া হবে তা এখনও জানা যায়নি।

অবশ্য ইন্দোনেশিয়ার গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, রাজধানী হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছে বরনিও দ্বীপের পালাংকারায়া। শহরটির বাসিন্দাদের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তাদের আপাত শান্ত শহরটি প্রাণচাঞ্চল্যে ভরপুর রাজধানীতে পরিণত হবে সেটি নিয়েই ভাবছেন তারা।

মন্ত্রিসভার একটি বিশেস বৈঠকে রাজধানী পরিবর্তনের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে রাষ্ট্রপতির কাছে তিনটি পথ তুলে ধরা হয়। প্রথমটি হলো, জাকার্তাতেই সরকারি অফিসগুলোর জন্য বিশেষায়িত অঞ্চল গড়ে তোলা, দ্বিতীয়টি হলো সরকারি অফিসগুলোকে জাকার্তার বাইরে নিয়ে যাওয়া এবং তৃতীয়টি হলো নতুন একটি রাজধানী গড়ে তোলা। রাষ্ট্রপতি জোকো উইদোদো শেষের পথটিই সবচেয়ে বেশি পছন্দ করেছেন বলে জানিয়েছে একটি সূত্র।

রাজধানী জাকার্তায় এক কোটির বেশি মানুষের বসবাস। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ডুবে যাওয়ার আশঙ্কায় থাকা শীর্ষ শহরগুলোর মধ্যে জাকার্তা অন্যতম।

১৯৪৫ সালে ডাচদের কাছ থেকে স্বাধীন হয় ইন্দোনেশিয়া। এরপর থেকে বেশ কয়েকবারই রাজধানী পরিবর্তনের প্রস্গে উঠেছে। তবে ২০১৬ সালে এক জরিপে উঠে আসে, বিশ্বের সবচেয়ে বাজে যানজটের শহর জাকার্তা। যে কোনো জরুরি কাজে সময়মতো পৌঁছতে দেশটির মন্ত্রীদের পুলিশের সহায়তা নেওয়া লাগে। অন্যদিকে দ্রুত ডুবে যেতে পারে এমন শহরের তালিকাতেও রয়েছে জাকার্তা। গবেষণা বলছে, ২০৫০ সাল নাগাদ মেগাসিটি জাকার্তা পুরোটাই পানিতে তলিয়ে যেতে পারে। দেখা গেছে, গত ১০ বছরে উত্তর জাকার্তা প্রায় ৮ ফুট ডুবেছে। প্রতিবছরই এ থেকে ১৫ সেন্টিমিটার করে ডুবছে শহরটি।

এছাড়া জাকার্তার অর্ধেকেরও বেশি এলাকার অবস্থান সমুদ্রপৃষ্ঠের নিচে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *